বাংলা

সূরা সা-দ - Verses Number 182
وَالصَّافَّاتِ صَفًّا ( 1 ) সা-দ - Ayaa 1
শপথ তাদের যারা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়ানো,
فَالزَّاجِرَاتِ زَجْرًا ( 2 ) সা-দ - Ayaa 2
অতঃপর ধমকিয়ে ভীতি প্রদর্শনকারীদের,
فَالتَّالِيَاتِ ذِكْرًا ( 3 ) সা-দ - Ayaa 3
অতঃপর মুখস্থ আবৃত্তিকারীদের-
إِنَّ إِلَٰهَكُمْ لَوَاحِدٌ ( 4 ) সা-দ - Ayaa 4
নিশ্চয় তোমাদের মাবুদ এক।
رَّبُّ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ وَمَا بَيْنَهُمَا وَرَبُّ الْمَشَارِقِ ( 5 ) সা-দ - Ayaa 5
তিনি আসমান সমূহ, যমীনও এতদুভয়ের মধ্যবর্তী সবকিছুর পালনকর্তা এবং পালনকর্তা উদয়াচলসমূহের।
إِنَّا زَيَّنَّا السَّمَاءَ الدُّنْيَا بِزِينَةٍ الْكَوَاكِبِ ( 6 ) সা-দ - Ayaa 6
নিশ্চয় আমি নিকটবর্তী আকাশকে তারকারাজির দ্বারা সুশোভিত করেছি।
وَحِفْظًا مِّن كُلِّ شَيْطَانٍ مَّارِدٍ ( 7 ) সা-দ - Ayaa 7
এবং তাকে সংরক্ষিত করেছি প্রত্যেক অবাধ্য শয়তান থেকে।
لَّا يَسَّمَّعُونَ إِلَى الْمَلَإِ الْأَعْلَىٰ وَيُقْذَفُونَ مِن كُلِّ جَانِبٍ ( 8 ) সা-দ - Ayaa 8
ওরা উর্ধ্ব জগতের কোন কিছু শ্রবণ করতে পারে না এবং চার দিক থেকে তাদের প্রতি উল্কা নিক্ষেপ করা হয়।
دُحُورًا ۖ وَلَهُمْ عَذَابٌ وَاصِبٌ ( 9 ) সা-দ - Ayaa 9
ওদেরকে বিতাড়নের উদ্দেশে। ওদের জন্যে রয়েছে বিরামহীন শাস্তি।
إِلَّا مَنْ خَطِفَ الْخَطْفَةَ فَأَتْبَعَهُ شِهَابٌ ثَاقِبٌ ( 10 ) সা-দ - Ayaa 10
তবে কেউ ছোঁ মেরে কিছু শুনে ফেললে জ্বলন্ত উল্কাপিন্ড তার পশ্চাদ্ধাবন করে।
فَاسْتَفْتِهِمْ أَهُمْ أَشَدُّ خَلْقًا أَم مَّنْ خَلَقْنَا ۚ إِنَّا خَلَقْنَاهُم مِّن طِينٍ لَّازِبٍ ( 11 ) সা-দ - Ayaa 11
আপনি তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন, তাদেরকে সৃষ্টি করা কঠিনতর, না আমি অন্য যা সৃষ্টি করেছি? আমিই তাদেরকে সৃষ্টি করেছি এঁটেল মাটি থেকে।
بَلْ عَجِبْتَ وَيَسْخَرُونَ ( 12 ) সা-দ - Ayaa 12
বরং আপনি বিস্ময় বোধ করেন আর তারা বিদ্রুপ করে।
وَإِذَا ذُكِّرُوا لَا يَذْكُرُونَ ( 13 ) সা-দ - Ayaa 13
যখন তাদেরকে বোঝানো হয়, তখন তারা বোঝে না।
وَإِذَا رَأَوْا آيَةً يَسْتَسْخِرُونَ ( 14 ) সা-দ - Ayaa 14
তারা যখন কোন নিদর্শন দেখে তখন বিদ্রূপ করে।
وَقَالُوا إِنْ هَٰذَا إِلَّا سِحْرٌ مُّبِينٌ ( 15 ) সা-দ - Ayaa 15
এবং বলে, কিছুই নয়, এযে স্পষ্ট যাদু।
أَإِذَا مِتْنَا وَكُنَّا تُرَابًا وَعِظَامًا أَإِنَّا لَمَبْعُوثُونَ ( 16 ) সা-দ - Ayaa 16
আমরা যখন মরে যাব, এবং মাটি ও হাড়ে পরিণত হয়ে যাব, তখনও কি আমরা পুনরুত্থিত হব?
أَوَآبَاؤُنَا الْأَوَّلُونَ ( 17 ) সা-দ - Ayaa 17
আমাদের পিতৃপুরুষগণও কি?
قُلْ نَعَمْ وَأَنتُمْ دَاخِرُونَ ( 18 ) সা-দ - Ayaa 18
বলুন, হ্যাঁ এবং তোমরা হবে লাঞ্ছিত।
فَإِنَّمَا هِيَ زَجْرَةٌ وَاحِدَةٌ فَإِذَا هُمْ يَنظُرُونَ ( 19 ) সা-দ - Ayaa 19
বস্তুতঃ সে উত্থান হবে একটি বিকট শব্দ মাত্র-যখন তারা প্রত্যক্ষ করতে থাকবে।
وَقَالُوا يَا وَيْلَنَا هَٰذَا يَوْمُ الدِّينِ ( 20 ) সা-দ - Ayaa 20
এবং বলবে, দুর্ভাগ্য আমাদের! এটাই তো প্রতিফল দিবস।
هَٰذَا يَوْمُ الْفَصْلِ الَّذِي كُنتُم بِهِ تُكَذِّبُونَ ( 21 ) সা-দ - Ayaa 21
বলা হবে, এটাই ফয়সালার দিন, যাকে তোমরা মিথ্যা বলতে।
احْشُرُوا الَّذِينَ ظَلَمُوا وَأَزْوَاجَهُمْ وَمَا كَانُوا يَعْبُدُونَ ( 22 ) সা-দ - Ayaa 22
একত্রিত কর গোনাহগারদেরকে, তাদের দোসরদেরকে এবং যাদের এবাদত তারা করত।
مِن دُونِ اللَّهِ فَاهْدُوهُمْ إِلَىٰ صِرَاطِ الْجَحِيمِ ( 23 ) সা-দ - Ayaa 23
আল্লাহ ব্যতীত। অতঃপর তাদেরকে পরিচালিত কর জাহান্নামের পথে,
وَقِفُوهُمْ ۖ إِنَّهُم مَّسْئُولُونَ ( 24 ) সা-দ - Ayaa 24
এবং তাদেরকে থামাও, তারা জিজ্ঞাসিত হবে;
مَا لَكُمْ لَا تَنَاصَرُونَ ( 25 ) সা-দ - Ayaa 25
তোমাদের কি হল যে, তোমরা একে অপরের সাহায্য করছ না?
بَلْ هُمُ الْيَوْمَ مُسْتَسْلِمُونَ ( 26 ) সা-দ - Ayaa 26
বরং তারা আজকের দিনে আত্নসমর্পণকারী।
وَأَقْبَلَ بَعْضُهُمْ عَلَىٰ بَعْضٍ يَتَسَاءَلُونَ ( 27 ) সা-দ - Ayaa 27
তারা একে অপরের দিকে মুখ করে পরস্পরকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
قَالُوا إِنَّكُمْ كُنتُمْ تَأْتُونَنَا عَنِ الْيَمِينِ ( 28 ) সা-দ - Ayaa 28
বলবে, তোমরা তো আমাদের কাছে ডান দিক থেকে আসতে।
قَالُوا بَل لَّمْ تَكُونُوا مُؤْمِنِينَ ( 29 ) সা-দ - Ayaa 29
তারা বলবে, বরং তোমরা তো বিশ্বাসীই ছিলে না।
وَمَا كَانَ لَنَا عَلَيْكُم مِّن سُلْطَانٍ ۖ بَلْ كُنتُمْ قَوْمًا طَاغِينَ ( 30 ) সা-দ - Ayaa 30
এবং তোমাদের উপর আমাদের কোন কতৃত্ব ছিল না, বরং তোমরাই ছিলে সীমালংঘনকারী সম্প্রদায়।
فَحَقَّ عَلَيْنَا قَوْلُ رَبِّنَا ۖ إِنَّا لَذَائِقُونَ ( 31 ) সা-দ - Ayaa 31
আমাদের বিপক্ষে আমাদের পালনকর্তার উক্তিই সত্য হয়েছে। আমাদেরকে অবশই স্বাদ আস্বাদন করতে হবে।
فَأَغْوَيْنَاكُمْ إِنَّا كُنَّا غَاوِينَ ( 32 ) সা-দ - Ayaa 32
আমরা তোমাদেরকে পথভ্রষ্ট করেছিলাম। কারণ আমরা নিজেরাই পথভ্রষ্ট ছিলাম।
فَإِنَّهُمْ يَوْمَئِذٍ فِي الْعَذَابِ مُشْتَرِكُونَ ( 33 ) সা-দ - Ayaa 33
তারা সবাই সেদিন শান্তিতে শরীক হবে।
إِنَّا كَذَٰلِكَ نَفْعَلُ بِالْمُجْرِمِينَ ( 34 ) সা-দ - Ayaa 34
অপরাধীদের সাথে আমি এমনি ব্যবহার করে থাকি।
إِنَّهُمْ كَانُوا إِذَا قِيلَ لَهُمْ لَا إِلَٰهَ إِلَّا اللَّهُ يَسْتَكْبِرُونَ ( 35 ) সা-দ - Ayaa 35
তাদের যখন বলা হত, আল্লাহ ব্যতীত কোন উপাস্য েনই, তখন তারা ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করত।
وَيَقُولُونَ أَئِنَّا لَتَارِكُو آلِهَتِنَا لِشَاعِرٍ مَّجْنُونٍ ( 36 ) সা-দ - Ayaa 36
এবং বলত, আমরা কি এক উম্মাদ কবির কথায় আমাদের উপাস্যদেরকে পরিত্যাগ করব।
بَلْ جَاءَ بِالْحَقِّ وَصَدَّقَ الْمُرْسَلِينَ ( 37 ) সা-দ - Ayaa 37
না, তিনি সত্যসহ আগমন করেছেন এবং রসূলগণের সত্যতা স্বীকার করেছেন।
إِنَّكُمْ لَذَائِقُو الْعَذَابِ الْأَلِيمِ ( 38 ) সা-দ - Ayaa 38
তোমরা অবশ্যই বেদনাদায়ক শাস্তি আস্বাদন করবে।
وَمَا تُجْزَوْنَ إِلَّا مَا كُنتُمْ تَعْمَلُونَ ( 39 ) সা-দ - Ayaa 39
তোমরা যা করতে, তারই প্রতিফল পাবে।
إِلَّا عِبَادَ اللَّهِ الْمُخْلَصِينَ ( 40 ) সা-দ - Ayaa 40
তবে তারা নয়, যারা আল্লাহর বাছাই করা বান্দা।
أُولَٰئِكَ لَهُمْ رِزْقٌ مَّعْلُومٌ ( 41 ) সা-দ - Ayaa 41
তাদের জন্যে রয়েছে নির্ধারিত রুযি।
فَوَاكِهُ ۖ وَهُم مُّكْرَمُونَ ( 42 ) সা-দ - Ayaa 42
ফল-মূল এবং তারা সম্মানিত।
فِي جَنَّاتِ النَّعِيمِ ( 43 ) সা-দ - Ayaa 43
নেয়ামতের উদ্যানসমূহ।
عَلَىٰ سُرُرٍ مُّتَقَابِلِينَ ( 44 ) সা-দ - Ayaa 44
মুখোমুখি হয়ে আসনে আসীন।
يُطَافُ عَلَيْهِم بِكَأْسٍ مِّن مَّعِينٍ ( 45 ) সা-দ - Ayaa 45
তাদেরকে ঘুরে ফিরে পরিবেশন করা হবে স্বচ্ছ পানপাত্র।
بَيْضَاءَ لَذَّةٍ لِّلشَّارِبِينَ ( 46 ) সা-দ - Ayaa 46
সুশুভ্র, যা পানকারীদের জন্যে সুস্বাদু।
لَا فِيهَا غَوْلٌ وَلَا هُمْ عَنْهَا يُنزَفُونَ ( 47 ) সা-দ - Ayaa 47
তাতে মাথা ব্যথার উপাদান নেই এবং তারা তা পান করে মাতালও হবে না।
وَعِندَهُمْ قَاصِرَاتُ الطَّرْفِ عِينٌ ( 48 ) সা-দ - Ayaa 48
তাদের কাছে থাকবে নত, আয়তলোচনা তরুণীগণ।
كَأَنَّهُنَّ بَيْضٌ مَّكْنُونٌ ( 49 ) সা-দ - Ayaa 49
যেন তারা সুরক্ষিত ডিম।
فَأَقْبَلَ بَعْضُهُمْ عَلَىٰ بَعْضٍ يَتَسَاءَلُونَ ( 50 ) সা-দ - Ayaa 50
অতঃপর তারা একে অপরের দিকে মুখ করে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।
قَالَ قَائِلٌ مِّنْهُمْ إِنِّي كَانَ لِي قَرِينٌ ( 51 ) সা-দ - Ayaa 51
তাদের একজন বলবে, আমার এক সঙ্গী ছিল।
يَقُولُ أَإِنَّكَ لَمِنَ الْمُصَدِّقِينَ ( 52 ) সা-দ - Ayaa 52
সে বলত, তুমি কি বিশ্বাস কর যে,
أَإِذَا مِتْنَا وَكُنَّا تُرَابًا وَعِظَامًا أَإِنَّا لَمَدِينُونَ ( 53 ) সা-দ - Ayaa 53
আমরা যখন মরে যাব এবং মাটি ও হাড়ে পরিণত হব, তখনও কি আমরা প্রতিফল প্রাপ্ত হব?
قَالَ هَلْ أَنتُم مُّطَّلِعُونَ ( 54 ) সা-দ - Ayaa 54
আল্লাহ বলবেন, তোমরা কি তাকে উকি দিয়ে দেখতে চাও?
فَاطَّلَعَ فَرَآهُ فِي سَوَاءِ الْجَحِيمِ ( 55 ) সা-দ - Ayaa 55
অপর সে উকি দিয়ে দেখবে এবং তাকে জাহান্নামের মাঝখানে দেখতে পাবে।
قَالَ تَاللَّهِ إِن كِدتَّ لَتُرْدِينِ ( 56 ) সা-দ - Ayaa 56
সে বলবে, আল্লাহর কসম, তুমি তো আমাকে প্রায় ধ্বংসই করে দিয়েছিলে।
وَلَوْلَا نِعْمَةُ رَبِّي لَكُنتُ مِنَ الْمُحْضَرِينَ ( 57 ) সা-দ - Ayaa 57
আমার পালনকর্তার অনুগ্রহ না হলে আমিও যে গ্রেফতারকৃতদের সাথেই উপস্থিত হতাম।
أَفَمَا نَحْنُ بِمَيِّتِينَ ( 58 ) সা-দ - Ayaa 58
এখন আমাদের আর মৃত্যু হবে না।
إِلَّا مَوْتَتَنَا الْأُولَىٰ وَمَا نَحْنُ بِمُعَذَّبِينَ ( 59 ) সা-দ - Ayaa 59
আমাদের প্রথম মৃত্যু ছাড়া এবং আমরা শাস্তি প্রাপ্তও হব না।
إِنَّ هَٰذَا لَهُوَ الْفَوْزُ الْعَظِيمُ ( 60 ) সা-দ - Ayaa 60
নিশ্চয় এই মহা সাফল্য।
لِمِثْلِ هَٰذَا فَلْيَعْمَلِ الْعَامِلُونَ ( 61 ) সা-দ - Ayaa 61
এমন সাফল্যের জন্যে পরিশ্রমীদের পরিশ্রম করা উচিত।
أَذَٰلِكَ خَيْرٌ نُّزُلًا أَمْ شَجَرَةُ الزَّقُّومِ ( 62 ) সা-দ - Ayaa 62
এই কি উত্তম আপ্যায়ন, না যাক্কুম বৃক্ষ?
إِنَّا جَعَلْنَاهَا فِتْنَةً لِّلظَّالِمِينَ ( 63 ) সা-দ - Ayaa 63
আমি যালেমদের জন্যে একে বিপদ করেছি।
إِنَّهَا شَجَرَةٌ تَخْرُجُ فِي أَصْلِ الْجَحِيمِ ( 64 ) সা-দ - Ayaa 64
এটি একটি বৃক্ষ, যা উদগত হয় জাহান্নামের মূলে।
طَلْعُهَا كَأَنَّهُ رُءُوسُ الشَّيَاطِينِ ( 65 ) সা-দ - Ayaa 65
এর গুচ্ছ শয়তানের মস্তকের মত।
فَإِنَّهُمْ لَآكِلُونَ مِنْهَا فَمَالِئُونَ مِنْهَا الْبُطُونَ ( 66 ) সা-দ - Ayaa 66
কাফেররা একে ভক্ষণ করবে এবং এর দ্বারা উদর পূর্ণ করবে।
ثُمَّ إِنَّ لَهُمْ عَلَيْهَا لَشَوْبًا مِّنْ حَمِيمٍ ( 67 ) সা-দ - Ayaa 67
তদুপরি তাদেরকে দেয়া হবে। ফুটন্ত পানির মিশ্রণ,
ثُمَّ إِنَّ مَرْجِعَهُمْ لَإِلَى الْجَحِيمِ ( 68 ) সা-দ - Ayaa 68
অতঃপর তাদের প্রত্যাবর্তন হবে জাহান্নামের দিকে।
إِنَّهُمْ أَلْفَوْا آبَاءَهُمْ ضَالِّينَ ( 69 ) সা-দ - Ayaa 69
তারা তাদের পূর্বপুরুষদেরকে পেয়েছিল বিপথগামী।
فَهُمْ عَلَىٰ آثَارِهِمْ يُهْرَعُونَ ( 70 ) সা-দ - Ayaa 70
অতঃপর তারা তদের পদাংক অনুসরণে তৎপর ছিল।
وَلَقَدْ ضَلَّ قَبْلَهُمْ أَكْثَرُ الْأَوَّلِينَ ( 71 ) সা-দ - Ayaa 71
তাদের পূর্বেও অগ্রবর্তীদের অধিকাংশ বিপথগামী হয়েছিল।
وَلَقَدْ أَرْسَلْنَا فِيهِم مُّنذِرِينَ ( 72 ) সা-দ - Ayaa 72
আমি তাদের মধ্যে ভীতি প্রদর্শনকারী প্রেরণ করেছিলাম।
فَانظُرْ كَيْفَ كَانَ عَاقِبَةُ الْمُنذَرِينَ ( 73 ) সা-দ - Ayaa 73
অতএব লক্ষ্য করুন, যাদেরকে ভীতিপ্রদর্শণ করা হয়েছিল, তাদের পরিণতি কি হয়েছে।
إِلَّا عِبَادَ اللَّهِ الْمُخْلَصِينَ ( 74 ) সা-দ - Ayaa 74
তবে আল্লাহর বাছাই করা বান্দাদের কথা ভিন্ন।
وَلَقَدْ نَادَانَا نُوحٌ فَلَنِعْمَ الْمُجِيبُونَ ( 75 ) সা-দ - Ayaa 75
আর নূহ আমাকে ডেকেছিল। আর কি চমৎকারভাবে আমি তার ডাকে সাড়া দিয়েছিলাম।
وَنَجَّيْنَاهُ وَأَهْلَهُ مِنَ الْكَرْبِ الْعَظِيمِ ( 76 ) সা-দ - Ayaa 76
আমি তাকে ও তার পরিবারবর্গকে এক মহাসংকট থেকে রক্ষা করেছিলাম।
وَجَعَلْنَا ذُرِّيَّتَهُ هُمُ الْبَاقِينَ ( 77 ) সা-দ - Ayaa 77
এবং তার বংশধরদেরকেই আমি অবশিষ্ট রেখেছিলাম।
وَتَرَكْنَا عَلَيْهِ فِي الْآخِرِينَ ( 78 ) সা-দ - Ayaa 78
আমি তার জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে এ বিষয় রেখে দিয়েছি যে,
سَلَامٌ عَلَىٰ نُوحٍ فِي الْعَالَمِينَ ( 79 ) সা-দ - Ayaa 79
বিশ্ববাসীর মধ্যে নূহের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক।
إِنَّا كَذَٰلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ ( 80 ) সা-দ - Ayaa 80
আমি এভাবেই সৎকর্ম পরায়নদেরকে পুরস্কৃত করে থাকি।
إِنَّهُ مِنْ عِبَادِنَا الْمُؤْمِنِينَ ( 81 ) সা-দ - Ayaa 81
সে ছিল আমার ঈমানদার বান্দাদের অন্যতম।
ثُمَّ أَغْرَقْنَا الْآخَرِينَ ( 82 ) সা-দ - Ayaa 82
অতঃপর আমি অপরাপর সবাইকে নিমজ্জত করেছিলাম।
وَإِنَّ مِن شِيعَتِهِ لَإِبْرَاهِيمَ ( 83 ) সা-দ - Ayaa 83
আর নূহ পন্থীদেরই একজন ছিল ইব্রাহীম।
إِذْ جَاءَ رَبَّهُ بِقَلْبٍ سَلِيمٍ ( 84 ) সা-দ - Ayaa 84
যখন সে তার পালনকর্তার নিকট সুষ্ঠু চিত্তে উপস্থিত হয়েছিল,
إِذْ قَالَ لِأَبِيهِ وَقَوْمِهِ مَاذَا تَعْبُدُونَ ( 85 ) সা-দ - Ayaa 85
যখন সে তার পিতা ও সম্প্রদায়কে বলেছিলঃ তোমরা কিসের উপাসনা করছ?
أَئِفْكًا آلِهَةً دُونَ اللَّهِ تُرِيدُونَ ( 86 ) সা-দ - Ayaa 86
তোমরা কি আল্লাহ ব্যতীত মিথ্যা উপাস্য কামনা করছ?
فَمَا ظَنُّكُم بِرَبِّ الْعَالَمِينَ ( 87 ) সা-দ - Ayaa 87
বিশ্বজগতের পালনকর্তা সম্পর্কে তোমাদের ধারণা কি?
فَنَظَرَ نَظْرَةً فِي النُّجُومِ ( 88 ) সা-দ - Ayaa 88
অতঃপর সে একবার তারকাদের প্রতি লক্ষ্য করল।
فَقَالَ إِنِّي سَقِيمٌ ( 89 ) সা-দ - Ayaa 89
এবং বললঃ আমি পীড়িত।
فَتَوَلَّوْا عَنْهُ مُدْبِرِينَ ( 90 ) সা-দ - Ayaa 90
অতঃপর তারা তার প্রতি পিঠ ফিরিয়ে চলে গেল।
فَرَاغَ إِلَىٰ آلِهَتِهِمْ فَقَالَ أَلَا تَأْكُلُونَ ( 91 ) সা-দ - Ayaa 91
অতঃপর সে তাদের দেবালয়ে, গিয়ে ঢুকল এবং বললঃ তোমরা খাচ্ছ না কেন?
مَا لَكُمْ لَا تَنطِقُونَ ( 92 ) সা-দ - Ayaa 92
তোমাদের কি হল যে, কথা বলছ না?
فَرَاغَ عَلَيْهِمْ ضَرْبًا بِالْيَمِينِ ( 93 ) সা-দ - Ayaa 93
অতঃপর সে প্রবল আঘাতে তাদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ল।
فَأَقْبَلُوا إِلَيْهِ يَزِفُّونَ ( 94 ) সা-দ - Ayaa 94
তখন লোকজন তার দিকে ছুটে এলো ভীত-সন্ত্রস্ত পদে।
قَالَ أَتَعْبُدُونَ مَا تَنْحِتُونَ ( 95 ) সা-দ - Ayaa 95
সে বললঃ তোমরা স্বহস্ত নির্মিত পাথরের পূজা কর কেন?
وَاللَّهُ خَلَقَكُمْ وَمَا تَعْمَلُونَ ( 96 ) সা-দ - Ayaa 96
অথচ আল্লাহ তোমাদেরকে এবং তোমরা যা নির্মাণ করছ সবাইকে সৃষ্টি করেছেন।
قَالُوا ابْنُوا لَهُ بُنْيَانًا فَأَلْقُوهُ فِي الْجَحِيمِ ( 97 ) সা-দ - Ayaa 97
তারা বললঃ এর জন্যে একটি ভিত নির্মাণ কর এবং অতঃপর তাকে আগুনের স্তুপে নিক্ষেপ কর।
فَأَرَادُوا بِهِ كَيْدًا فَجَعَلْنَاهُمُ الْأَسْفَلِينَ ( 98 ) সা-দ - Ayaa 98
তারপর তারা তার বিরুদ্ধে মহা ষড়যন্ত্র আঁটতে চাইল, কিন্তু আমি তাদেরকেই পরাভূত করে দিলাম।
وَقَالَ إِنِّي ذَاهِبٌ إِلَىٰ رَبِّي سَيَهْدِينِ ( 99 ) সা-দ - Ayaa 99
সে বললঃ আমি আমার পালনকর্তার দিকে চললাম, তিনি আমাকে পথপ্রদর্শন করবেন।
رَبِّ هَبْ لِي مِنَ الصَّالِحِينَ ( 100 ) সা-দ - Ayaa 100
হে আমার পরওয়ারদেগার! আমাকে এক সৎপুত্র দান কর।
فَبَشَّرْنَاهُ بِغُلَامٍ حَلِيمٍ ( 101 ) সা-দ - Ayaa 101
সুতরাং আমি তাকে এক সহনশীল পুত্রের সুসংবাদ দান করলাম।
فَلَمَّا بَلَغَ مَعَهُ السَّعْيَ قَالَ يَا بُنَيَّ إِنِّي أَرَىٰ فِي الْمَنَامِ أَنِّي أَذْبَحُكَ فَانظُرْ مَاذَا تَرَىٰ ۚ قَالَ يَا أَبَتِ افْعَلْ مَا تُؤْمَرُ ۖ سَتَجِدُنِي إِن شَاءَ اللَّهُ مِنَ الصَّابِرِينَ ( 102 ) সা-দ - Ayaa 102
অতঃপর সে যখন পিতার সাথে চলাফেরা করার বয়সে উপনীত হল, তখন ইব্রাহীম তাকে বললঃ বৎস! আমি স্বপ্নে দেখিযে, তোমাকে যবেহ করছি; এখন তোমার অভিমত কি দেখ। সে বললঃ পিতাঃ! আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে, তাই করুন। আল্লাহ চাহে তো আপনি আমাকে সবরকারী পাবেন।
فَلَمَّا أَسْلَمَا وَتَلَّهُ لِلْجَبِينِ ( 103 ) সা-দ - Ayaa 103
যখন পিতা-পুত্র উভয়েই আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইব্রাহীম তাকে যবেহ করার জন্যে শায়িত করল।
وَنَادَيْنَاهُ أَن يَا إِبْرَاهِيمُ ( 104 ) সা-দ - Ayaa 104
তখন আমি তাকে ডেকে বললামঃ হে ইব্রাহীম,
قَدْ صَدَّقْتَ الرُّؤْيَا ۚ إِنَّا كَذَٰلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ ( 105 ) সা-দ - Ayaa 105
তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে! আমি এভাবেই সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।
إِنَّ هَٰذَا لَهُوَ الْبَلَاءُ الْمُبِينُ ( 106 ) সা-দ - Ayaa 106
নিশ্চয় এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা।
وَفَدَيْنَاهُ بِذِبْحٍ عَظِيمٍ ( 107 ) সা-দ - Ayaa 107
আমি তার পরিবর্তে দিলাম যবেহ করার জন্যে এক মহান জন্তু।
وَتَرَكْنَا عَلَيْهِ فِي الْآخِرِينَ ( 108 ) সা-দ - Ayaa 108
আমি তার জন্যে এ বিষয়টি পরবর্তীদের মধ্যে রেখে দিয়েছি যে,
سَلَامٌ عَلَىٰ إِبْرَاهِيمَ ( 109 ) সা-দ - Ayaa 109
ইব্রাহীমের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক।
كَذَٰلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ ( 110 ) সা-দ - Ayaa 110
এমনিভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।
إِنَّهُ مِنْ عِبَادِنَا الْمُؤْمِنِينَ ( 111 ) সা-দ - Ayaa 111
সে ছিল আমার বিশ্বাসী বান্দাদের একজন।
وَبَشَّرْنَاهُ بِإِسْحَاقَ نَبِيًّا مِّنَ الصَّالِحِينَ ( 112 ) সা-দ - Ayaa 112
আমি তাকে সুসংবাদ দিয়েছি ইসহাকের, সে সৎকর্মীদের মধ্য থেকে একজন নবী।
وَبَارَكْنَا عَلَيْهِ وَعَلَىٰ إِسْحَاقَ ۚ وَمِن ذُرِّيَّتِهِمَا مُحْسِنٌ وَظَالِمٌ لِّنَفْسِهِ مُبِينٌ ( 113 ) সা-দ - Ayaa 113
তাকে এবং ইসহাককে আমি বরকত দান করেছি। তাদের বংশধরদের মধ্যে কতক সৎকর্মী এবং কতক নিজেদের উপর স্পষ্ট জুলুমকারী।
وَلَقَدْ مَنَنَّا عَلَىٰ مُوسَىٰ وَهَارُونَ ( 114 ) সা-দ - Ayaa 114
আমি অনুগ্রহ করেছিলাম মূসা ও হারুনের প্রতি।
وَنَجَّيْنَاهُمَا وَقَوْمَهُمَا مِنَ الْكَرْبِ الْعَظِيمِ ( 115 ) সা-দ - Ayaa 115
তাদেরকে ও তাদের সম্প্রদায়কে উদ্ধার করেছি মহা সংকট থেকে।
وَنَصَرْنَاهُمْ فَكَانُوا هُمُ الْغَالِبِينَ ( 116 ) সা-দ - Ayaa 116
আমি তাদেরকে সাহায্য করেছিলাম, ফলে তারাই ছিল বিজয়ী।
وَآتَيْنَاهُمَا الْكِتَابَ الْمُسْتَبِينَ ( 117 ) সা-দ - Ayaa 117
আমি উভয়কে দিয়েছিলাম সুস্পষ্ট কিতাব।
وَهَدَيْنَاهُمَا الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ ( 118 ) সা-দ - Ayaa 118
এবং তাদেরকে সরল পথ প্রদর্শন করেছিলাম।
وَتَرَكْنَا عَلَيْهِمَا فِي الْآخِرِينَ ( 119 ) সা-দ - Ayaa 119
আমি তাদের জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে এ বিষয় রেখে দিয়েছি যে,
سَلَامٌ عَلَىٰ مُوسَىٰ وَهَارُونَ ( 120 ) সা-দ - Ayaa 120
মূসা ও হারুনের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক।
إِنَّا كَذَٰلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ ( 121 ) সা-দ - Ayaa 121
এভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।
إِنَّهُمَا مِنْ عِبَادِنَا الْمُؤْمِنِينَ ( 122 ) সা-দ - Ayaa 122
তারা উভয়েই ছিল আমার বিশ্বাসী বান্দাদের অন্যতম।
وَإِنَّ إِلْيَاسَ لَمِنَ الْمُرْسَلِينَ ( 123 ) সা-দ - Ayaa 123
নিশ্চয়ই ইলিয়াস ছিল রসূল।
إِذْ قَالَ لِقَوْمِهِ أَلَا تَتَّقُونَ ( 124 ) সা-দ - Ayaa 124
যখন সে তার সম্প্রদায়কে বললঃ তোমরা কি ভয় কর না ?
أَتَدْعُونَ بَعْلًا وَتَذَرُونَ أَحْسَنَ الْخَالِقِينَ ( 125 ) সা-দ - Ayaa 125
তোমরা কি বা’আল দেবতার এবাদত করবে এবং সর্বোত্তম স্রষ্টাকে পরিত্যাগ করবে।
اللَّهَ رَبَّكُمْ وَرَبَّ آبَائِكُمُ الْأَوَّلِينَ ( 126 ) সা-দ - Ayaa 126
যিনি আল্লাহ তোমাদের পালনকর্তা এবং তোমাদের পূর্বপুরুষদের পালনকর্তা?
فَكَذَّبُوهُ فَإِنَّهُمْ لَمُحْضَرُونَ ( 127 ) সা-দ - Ayaa 127
অতঃপর তারা তাকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করল। অতএব তারা অবশ্যই গ্রেফতার হয়ে আসবে।
إِلَّا عِبَادَ اللَّهِ الْمُخْلَصِينَ ( 128 ) সা-দ - Ayaa 128
কিন্তু আল্লাহ তা’আলার খাঁটি বান্দাগণ নয়।
وَتَرَكْنَا عَلَيْهِ فِي الْآخِرِينَ ( 129 ) সা-দ - Ayaa 129
আমি তার জন্যে পরবর্তীদের মধ্যে এ বিষয়ে রেখে দিয়েছি যে,
سَلَامٌ عَلَىٰ إِلْ يَاسِينَ ( 130 ) সা-দ - Ayaa 130
ইলিয়াসের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক!
إِنَّا كَذَٰلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ ( 131 ) সা-দ - Ayaa 131
এভাবেই আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।
إِنَّهُ مِنْ عِبَادِنَا الْمُؤْمِنِينَ ( 132 ) সা-দ - Ayaa 132
সে ছিল আমার বিশ্বাসী বান্দাদের অন্তর্ভূক্ত।
وَإِنَّ لُوطًا لَّمِنَ الْمُرْسَلِينَ ( 133 ) সা-দ - Ayaa 133
নিশ্চয় লূত ছিলেন রসূলগণের একজন।
إِذْ نَجَّيْنَاهُ وَأَهْلَهُ أَجْمَعِينَ ( 134 ) সা-দ - Ayaa 134
যখন আমি তাকেও তার পরিবারের সবাইকে উদ্ধার করেছিলাম;
إِلَّا عَجُوزًا فِي الْغَابِرِينَ ( 135 ) সা-দ - Ayaa 135
কিন্তু এক বৃদ্ধাকে ছাড়া; সে অন্যান্যদের সঙ্গে থেকে গিয়েছিল।
ثُمَّ دَمَّرْنَا الْآخَرِينَ ( 136 ) সা-দ - Ayaa 136
অতঃপর অবশিষ্টদেরকে আমি সমূলে উৎপাটিত করেছিলাম।
وَإِنَّكُمْ لَتَمُرُّونَ عَلَيْهِم مُّصْبِحِينَ ( 137 ) সা-দ - Ayaa 137
তোমরা তোমাদের ধ্বংস স্তুপের উপর দিয়ে গমন কর ভোর বেলায়
وَبِاللَّيْلِ ۗ أَفَلَا تَعْقِلُونَ ( 138 ) সা-দ - Ayaa 138
এবং সন্ধ্যায়, তার পরেও কি তোমরা বোঝ না?
وَإِنَّ يُونُسَ لَمِنَ الْمُرْسَلِينَ ( 139 ) সা-দ - Ayaa 139
আর ইউনুসও ছিলেন পয়গম্বরগণের একজন।
إِذْ أَبَقَ إِلَى الْفُلْكِ الْمَشْحُونِ ( 140 ) সা-দ - Ayaa 140
যখন পালিয়ে তিনি বোঝাই নৌকায় গিয়ে পৌঁছেছিলেন।
فَسَاهَمَ فَكَانَ مِنَ الْمُدْحَضِينَ ( 141 ) সা-দ - Ayaa 141
অতঃপর লটারী (সুরতি) করালে তিনি দোষী সাব্যস্ত হলেন।
فَالْتَقَمَهُ الْحُوتُ وَهُوَ مُلِيمٌ ( 142 ) সা-দ - Ayaa 142
অতঃপর একটি মাছ তাঁকে গিলে ফেলল, তখন তিনি অপরাধী গণ্য হয়েছিলেন।
فَلَوْلَا أَنَّهُ كَانَ مِنَ الْمُسَبِّحِينَ ( 143 ) সা-দ - Ayaa 143
যদি তিনি আল্লাহর তসবীহ পাঠ না করতেন,
لَلَبِثَ فِي بَطْنِهِ إِلَىٰ يَوْمِ يُبْعَثُونَ ( 144 ) সা-দ - Ayaa 144
তবে তাঁকে কেয়ামত দিবস পর্যন্ত মাছের পেটেই থাকতে হত।
فَنَبَذْنَاهُ بِالْعَرَاءِ وَهُوَ سَقِيمٌ ( 145 ) সা-দ - Ayaa 145
অতঃপর আমি তাঁকে এক বিস্তীর্ণ-বিজন প্রান্তরে নিক্ষেপ করলাম, তখন তিনি ছিলেন রুগ্ন।
وَأَنبَتْنَا عَلَيْهِ شَجَرَةً مِّن يَقْطِينٍ ( 146 ) সা-দ - Ayaa 146
আমি তাঁর উপর এক লতাবিশিষ্ট বৃক্ষ উদগত করলাম।
وَأَرْسَلْنَاهُ إِلَىٰ مِائَةِ أَلْفٍ أَوْ يَزِيدُونَ ( 147 ) সা-দ - Ayaa 147
এবং তাঁকে, লক্ষ বা ততোধিক লোকের প্রতি প্রেরণ করলাম।
فَآمَنُوا فَمَتَّعْنَاهُمْ إِلَىٰ حِينٍ ( 148 ) সা-দ - Ayaa 148
তারা বিশ্বাস স্থাপন করল অতঃপর আমি তাদেরকে নির্ধারিত সময় পর্যন্ত জীবনোপভোগ করতে দিলাম।
فَاسْتَفْتِهِمْ أَلِرَبِّكَ الْبَنَاتُ وَلَهُمُ الْبَنُونَ ( 149 ) সা-দ - Ayaa 149
এবার তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন, তোমার পালনকর্তার জন্যে কি কন্যা সন্তান রয়েছে এবং তাদের জন্যে কি পুত্র-সন্তান।
أَمْ خَلَقْنَا الْمَلَائِكَةَ إِنَاثًا وَهُمْ شَاهِدُونَ ( 150 ) সা-দ - Ayaa 150
না কি আমি তাদের উপস্থিতিতে ফেরেশতাগণকে নারীরূপে সৃষ্টি করেছি?
أَلَا إِنَّهُم مِّنْ إِفْكِهِمْ لَيَقُولُونَ ( 151 ) সা-দ - Ayaa 151
জেনো, তারা মনগড়া উক্তি করে যে,
وَلَدَ اللَّهُ وَإِنَّهُمْ لَكَاذِبُونَ ( 152 ) সা-দ - Ayaa 152
আল্লাহ সন্তান জন্ম দিয়েছেন। নিশ্চয় তারা মিথ্যাবাদী।
أَصْطَفَى الْبَنَاتِ عَلَى الْبَنِينَ ( 153 ) সা-দ - Ayaa 153
তিনি কি পুত্র-সন্তানের স্থলে কন্যা-সন্তান পছন্দ করেছেন?
مَا لَكُمْ كَيْفَ تَحْكُمُونَ ( 154 ) সা-দ - Ayaa 154
তোমাদের কি হল? তোমাদের এ কেমন সিন্ধান্ত?
أَفَلَا تَذَكَّرُونَ ( 155 ) সা-দ - Ayaa 155
তোমরা কি অনুধাবন কর না?
أَمْ لَكُمْ سُلْطَانٌ مُّبِينٌ ( 156 ) সা-দ - Ayaa 156
না কি তোমাদের কাছে সুস্পষ্ট কোন দলীল রয়েছে?
فَأْتُوا بِكِتَابِكُمْ إِن كُنتُمْ صَادِقِينَ ( 157 ) সা-দ - Ayaa 157
তোমরা সত্যবাদী হলে তোমাদের কিতাব আন।
وَجَعَلُوا بَيْنَهُ وَبَيْنَ الْجِنَّةِ نَسَبًا ۚ وَلَقَدْ عَلِمَتِ الْجِنَّةُ إِنَّهُمْ لَمُحْضَرُونَ ( 158 ) সা-দ - Ayaa 158
তারা আল্লাহ ও জ্বিনদের মধ্যে সম্পর্ক সাব্যস্ত করেছে, অথচ জ্বিনেরা জানে যে, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে।
سُبْحَانَ اللَّهِ عَمَّا يَصِفُونَ ( 159 ) সা-দ - Ayaa 159
তারা যা বলে তা থেকে আল্লাহ পবিত্র।
إِلَّا عِبَادَ اللَّهِ الْمُخْلَصِينَ ( 160 ) সা-দ - Ayaa 160
তবে যারা আল্লাহর নিষ্ঠাবান বান্দা, তারা গ্রেফতার হয়ে আসবে না।
فَإِنَّكُمْ وَمَا تَعْبُدُونَ ( 161 ) সা-দ - Ayaa 161
অতএব তোমরা এবং তোমরা যাদের উপাসনা কর,
مَا أَنتُمْ عَلَيْهِ بِفَاتِنِينَ ( 162 ) সা-দ - Ayaa 162
তাদের কাউকেই তোমরা আল্লাহ সম্পর্কে বিভ্রান্ত করতে পারবে না।
إِلَّا مَنْ هُوَ صَالِ الْجَحِيمِ ( 163 ) সা-দ - Ayaa 163
শুধুমাত্র তাদের ছাড়া যারা জাহান্নামে পৌছাবে।
وَمَا مِنَّا إِلَّا لَهُ مَقَامٌ مَّعْلُومٌ ( 164 ) সা-দ - Ayaa 164
আমাদের প্রত্যেকের জন্য রয়েছে নির্দিষ্ট স্থান।
وَإِنَّا لَنَحْنُ الصَّافُّونَ ( 165 ) সা-দ - Ayaa 165
এবং আমরাই সারিবদ্ধভাবে দন্ডায়মান থাকি।
وَإِنَّا لَنَحْنُ الْمُسَبِّحُونَ ( 166 ) সা-দ - Ayaa 166
এবং আমরাই আল্লাহর পবিত্রতা ঘোষণা করি।
وَإِن كَانُوا لَيَقُولُونَ ( 167 ) সা-দ - Ayaa 167
তারা তো বলতঃ
لَوْ أَنَّ عِندَنَا ذِكْرًا مِّنَ الْأَوَّلِينَ ( 168 ) সা-দ - Ayaa 168
যদি আমাদের কাছে পূর্ববর্তীদের কোন উপদেশ থাকত,
لَكُنَّا عِبَادَ اللَّهِ الْمُخْلَصِينَ ( 169 ) সা-দ - Ayaa 169
তবে আমরা অবশ্যই আল্লাহর মনোনীত বান্দা হতাম।
فَكَفَرُوا بِهِ ۖ فَسَوْفَ يَعْلَمُونَ ( 170 ) সা-দ - Ayaa 170
বস্তুতঃ তারা এই কোরআনকে অস্বীকার করেছে। এখন শীঘ্রই তারা জেনে নিতে পারবে,
وَلَقَدْ سَبَقَتْ كَلِمَتُنَا لِعِبَادِنَا الْمُرْسَلِينَ ( 171 ) সা-দ - Ayaa 171
আমার রাসূল ও বান্দাগণের ব্যাপারে আমার এই বাক্য সত্য হয়েছে যে,
إِنَّهُمْ لَهُمُ الْمَنصُورُونَ ( 172 ) সা-দ - Ayaa 172
অবশ্যই তারা সাহায্য প্রাপ্ত হয়।
وَإِنَّ جُندَنَا لَهُمُ الْغَالِبُونَ ( 173 ) সা-দ - Ayaa 173
আর আমার বাহিনীই হয় বিজয়ী।
فَتَوَلَّ عَنْهُمْ حَتَّىٰ حِينٍ ( 174 ) সা-দ - Ayaa 174
অতএব আপনি কিছুকালের জন্যে তাদেরকে উপেক্ষা করুন।
وَأَبْصِرْهُمْ فَسَوْفَ يُبْصِرُونَ ( 175 ) সা-দ - Ayaa 175
এবং তাদেরকে দেখতে থাকুন। শীঘ্রই তারাও এর পরিণাম দেখে নেবে।
أَفَبِعَذَابِنَا يَسْتَعْجِلُونَ ( 176 ) সা-দ - Ayaa 176
আমার আযাব কি তারা দ্রুত কামনা করে?
فَإِذَا نَزَلَ بِسَاحَتِهِمْ فَسَاءَ صَبَاحُ الْمُنذَرِينَ ( 177 ) সা-দ - Ayaa 177
অতঃপর যখন তাদের আঙ্গিনায় আযাব নাযিল হবে, তখন যাদেরকে সতর্ক করা হয়েছিল, তাদের সকাল বেলাটি হবে খুবই মন্দ।
وَتَوَلَّ عَنْهُمْ حَتَّىٰ حِينٍ ( 178 ) সা-দ - Ayaa 178
আপনি কিছুকালের জন্যে তাদেরকে উপেক্ষা করুন।
وَأَبْصِرْ فَسَوْفَ يُبْصِرُونَ ( 179 ) সা-দ - Ayaa 179
এবং দেখতে থাকুন, শীঘ্রই তারাও এর পরিণাম দেখে নেবে।
سُبْحَانَ رَبِّكَ رَبِّ الْعِزَّةِ عَمَّا يَصِفُونَ ( 180 ) সা-দ - Ayaa 180
পবিত্র আপনার পরওয়ারদেগারের সত্তা, তিনি সম্মানিত ও পবিত্র যা তারা বর্ণনা করে তা থেকে।
وَسَلَامٌ عَلَى الْمُرْسَلِينَ ( 181 ) সা-দ - Ayaa 181
পয়গম্বরগণের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক।
وَالْحَمْدُ لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ ( 182 ) সা-দ - Ayaa 182
সমস্ত প্রশংসা বিশ্বপালক আল্লাহর নিমিত্ত।

বই

  • রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সালাত আদায় পদ্ধতি-

    সংকলন : আব্দুল আযীয ইবন আবদুল্লাহ ইবন বায

    সম্পাদক : যাকের হুসাইন বিন ওরাসাতুল্লাহ - জাকের হুসাইন বিন ওয়ারাসাতুল্লাহ

    অনুবাদক : আব্দুননূর বিন আব্দুল জাব্বার

    প্রকাশনায় : ইসলাম প্রচার ব্যুরো, রাবওয়াহ, রিয়াদ - ইসলামী গ্রন্থাগার : http://www.islamicbook.ws

    Source : http://www.islamhouse.com/p/2653

    Download :রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সালাত আদায় পদ্ধতিরাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সালাত আদায় পদ্ধতি

  • যা না জানলেই নয়যা না জানলেই নয় : তাওহীদ কি ?, শিরক কিভাবে মানুষের কর্মে ও চিন্তায় ডাল-পালা বিস্তার করে? রাসূলের অনুসরণ মুমিনের জন্য কেন জরুরি?, মুমিনের অন্তর কীভাবে হারাতে বসে অতলান্তিক অন্ধকারে ?, ইসলাম বিনষ্টকারী উপকরণগুলো কি কি, ইত্যাদি বিষয় যে কোন মুসলমানের জ্ঞান থাকা আবশ্যকীয়, বইটি তারই প্রয়াস।

    সংকলন : নুমান বিন আবুল বাশার

    সম্পাদক : আব্দুল্লাহ শহীদ আব্দুর রহমান

    প্রকাশনায় : ইসলাম প্রচার ব্যুরো, রাবওয়াহ, রিয়াদ

    Source : http://www.islamhouse.com/p/53481

    Download :যা না জানলেই নয়যা না জানলেই নয়

  • আল-কুরআনুল কারীমের শেষ তিন পারার তাফসীর সাথে আছে গুরুত্বপূর্ণ কিছু আহকাম ও মাসায়েলএটি একটি সংক্ষিপ্ত গ্রন্থ। এতে একজন মুসলিম দৈনন্দিন জীবনে কোরআন,তাফসীর, ফেকহী বিধি-বিধান,আকীদা ও ফাযায়েল সংক্রান্ত যে সকল বিষয়াদির প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে সংক্ষিপ্ত আকারে হলেও সুনিপুনভাবে তার বিবরণ দেয়া হয়েছে। কিতাবটি দু'ভাগে বিভক্ত। প্রথম ভাগে স্থান পেয়েছে কোরআনুল কারীমের শেষ তিন পারার তাফসীর, যা শায়খ মুহাম্মাদ আল আশকার প্রণীত যুবতাতুত তাফসীর গ্রন্থ হতে নেয়া হয়েছে। আর দ্বিতীয় ভাগে একজন মুসলিমের জন্যে অতি গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। যেমন: -আহকামুত তাজবীদ তথা বিশুদ্ধরূপে কোরআন তেলাওয়াত করার ব্যাকরণ। -আকীদা বিষয়ক ৬২টি প্রশ্ন ও তার জবাব -তাওহীদ বিষয়ক একটি বিনম্র পর্যালোচনা -আহকামুল ইসলাম তথা ইসলামী বিধি-বিধান{শাহাদাতাইন, তাহারাত,সালাত, যাকাত, হজ্জ} -বিবিধ বিষয়াবলী -ঝাড়-ফুঁক - দোআ - আযকার - ১০০ ফযীলত ও ৭০ নিষিদ্ধ কাজ - ওযু ও সালাতের স্বচিত্র বিবরণ - চিরন্তন যাত্রা

    সংকলন : একদল বিজ্ঞ আলেম

    প্রকাশনায় : http://www.tafseer.info

    Source : http://www.islamhouse.com/p/172432

    Download :আল-কুরআনুল কারীমের শেষ তিন পারার তাফসীর সাথে আছে গুরুত্বপূর্ণ কিছু আহকাম ও মাসায়েলআল-কুরআনুল কারীমের শেষ তিন পারার তাফসীর সাথে আছে গুরুত্বপূর্ণ কিছু আহকাম ও মাসায়েল

  • আমার দেখা বৃটেনএই বইটিতে প্রখ্যাত চিন্তাবিদ ড. আব্দুল্লাহ আল খাতিরের বৃটেন দেখার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করা হয়েছে। পাশ্চাত্য সমাজ কিভাবে দিনে দিনে অধপতনে যাচ্ছে ও এ থেকে আমাদের জন্য কী শেখার আছে এ বিষয়টি তিনি তুলে ধরেছেন তার এ লেখায়।

    সংকলন : আব্দুল্লাহ আল খাতির

    সম্পাদক : চৌধুরী আবুল কালাম আজাদ

    অনুবাদক : সানাউল্লাহ নজির আহমদ

    প্রকাশনায় : ইসলাম প্রচার ব্যুরো, রাবওয়াহ, রিয়াদ

    Source : http://www.islamhouse.com/p/249964

    Download :আমার দেখা বৃটেনআমার দেখা বৃটেন

  • আকীদা ও ফিকহ্ (২)অত্র বইটিতে একদল বিদগ্ধ শিক্ষাবিদ ও গবেষক শিশুদের স্বভাব-প্রকৃতি ও মননশীলতার প্রতি গভীর দৃষ্টি রেখে আকীদার মৌলিক বিষয় ও ফিকার গুরুত্বপূর্ণ কিছু মাসায়েল সন্বিবিষিত করেছেন। বইটি কেজি টু বা দ্বিতীয় শ্রেণীর শিশু-কিশোরদের জন্য পাঠ্য করা হলে বিশেষভাবে উপকৃত হবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

    সংকলন : মোহাম্মদ মানজুরে ইলাহী

    প্রকাশনায় : ইসলাম প্রচার ব্যুরো, রাবওয়াহ, রিয়াদ

    Source : http://www.islamhouse.com/p/177586

    Download :আকীদা ও ফিকহ্ (২)আকীদা ও ফিকহ্ (২)

ভাষা

Choose সূরা

বই

Choose tafseer

Participate

Bookmark and Share